সীমান্তে অপরাধ না ঘটলে হত্যাকাণ্ডের ঘটনাও ঘটবে না: এস জয়শঙ্কর

image_pdfimage_print

রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের সঙ্গে বৈঠক শেষে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর বলেন, ভারত চায় সীমান্তে এ ধরনের ঘটনা না ঘটুক। হত্যা ও অপরাধ কোনোটিই কাম্য নয়
তিস্তা প্রসঙ্গে বলেন, এ নিয়ে ভারত সরকারের অবস্থান অপরিবর্তিত। দ্রুত সময়ে উভয় দেশের পানি সচিব পর্যায়ের বৈঠক হবে।
প্রতিবেশী দেশ হিসেবে বাংলাদেশকে প্রথম গুরুত্ব দেয় ভারত।
তিনি বলেন, উভয় দেশের সংস্কৃতি, জ্বালানি, পানিসহ নানা বিষয়ে ফলপ্রসূ আলোচনা হয়েছে।
বাংলাদেশের এলডিসি উত্তরণ মূলত বাংলাদেশের উন্নয়নের প্রতিচ্ছবি।
ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সফরে সমঝোতা স্মারক চূড়ান্ত করতে একদিনের সংক্ষিপ্ত সফরে বিশেষ বিমানে বৃহস্পতিবার সকাল ১০টায় ঢাকা আসেন ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শঙ্কর।
পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেনের সঙ্গে ১১টা বৈঠকে মিলিত হন এস জয়শঙ্কর। বিকেলে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গেও বৈঠক করবেন তিনি।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমন্ত্রণে ২৬ মার্চ ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ঢাকায় আসছেন। ২৭ মার্চ উভয় প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক হতে পারে।
এর আগে পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম জানান, ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সফরে কানেক্টিভিটি, বাণিজ্য, আঞ্চলিক সহযোগিতা ও কোভিড পরবর্তী সময়ে সহযোগিতা নিয়ে আলোচনা হবে।
ভারত থেকে আমাদের প্রচুর কাঁচামাল আসে। এই মালামালের জন্য আমদানি রপ্তানি বাধা দূর করার বিষয়ে আলোচনা হবে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সফরকালে দুই দেশের মধ্যে একটি ট্রেন সার্ভিস উদ্বোধন হবে বলে আশা করছি।
এর আগে গত ১৭ মার্চ দুই প্রধানমন্ত্রীর মধ্যে ভার্চ্যুয়াল বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।
মোদীর সফর সামনে রেখে গত ২৮ থেকে ৩১ জানুয়ারি পররাষ্ট্র সচিব মাসুদ বিন মোমেন নয়াদিল্লি সফর করেন। সেসময় ভারতের পররাষ্ট্র সচিব হর্ষ বর্ধন শ্রিংলার সঙ্গে বৈঠক করেন।
গত ১৮ আগস্ট ভারতের পররাষ্ট্র সচিব হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা ঢাকায় এসেছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *