সিলেটের কুমারগাঁও বিদ্যুৎ উপ-কেন্দ্রে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে

image_pdfimage_print

আজ মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে ভয়াবহ আগুন লাগার ঘটনা ঘটে। অগ্নিকাণ্ডের কারণে পুরো সিলেটে বিদ্যুৎ সরবরাহ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এই বিদ্যুৎ উপ-কেন্দে ৮ থেকে ১০টি ট্রান্সফরমার রয়েছে। ভয়াবহ এই অগ্নিকাণ্ডে ৩৩ কেভির বিদ্যুৎকেন্দ্রের দুটি ট্রান্সফরমার পুড়ে যায়। ট্রান্সফরমারের পাশাপাশি অনেক কিছুই পুড়ে গেছে।
ফায়ার সার্ভিসের চারটি ইউনিট পৌনে দুই ঘণ্টা ধরে চেষ্টার পর দুপুর ১২টা ৪৫ মিনিটে ১২০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎকেন্দ্রের আগুন নিয়ন্ত্রণে আসে।
সিলেট বিদ্যুৎ বিতরণ বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী মোকাম্মেল হোসেন এসব তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, বর্তমানে মেশিন ঠান্ডা করার চেষ্টা চালাচ্ছেন দমকল বাহিনীর সদস্যরা।
কখনো বিদ্যুৎকেন্দ্র, আবার কখনো সঞ্চালন গ্রিড উপকেন্দ্র – একের পর এক আগুনের ঘটনায় ব্যাহত হচ্ছে বিদ্যুৎ সঞ্চালন ব্যবস্থা। ঠিকঠাক নকশা না হওয়া, নিয়মিত রক্ষণাবেক্ষণের অভাব, দায়িত্বে অবহেলা আর অদক্ষতাকেই নির্ভরযোগ্য বিদ্যুৎ সরবরাহের অন্তরায় মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। যার কারণে প্রায়ই ঘটছে এমন দুর্ঘটনা।
এদিকে দেশে সব থেকে বেশি ট্রান্সফরমার পোড়ে পল্লী বিদ্যুতায়ন বোর্ডের এলাকায়। গত নভেম্বরে আরইবির অধীন পল্লী বিদ্যুৎ সমিতিগুলোর ট্রান্সফরমার পুড়েছে ৪ হাজার ৯৬৬টি, ডিসেম্বরে পুড়েছে ৩ হাজার ৩৮টি।
আবার গত বছরের মার্চে অর্থাৎ গ্রীষ্মের সময় আরইবি এলাকায় ৪ হাজার ৩৫৪টি ও এপ্রিলে ৬ হাজার ৬৪৪টি ট্রান্সফরমার পুড়েছে।
আরইবি চেয়ারম্যান মেজর জেনারেল মঈন উদ্দিন বলেন, ‘নিয়মিত ওভারলোডেড ট্রান্সফরমার পরিবর্তন করা হচ্ছে। এতে ট্রান্সফরমার পুড়ে যাওয়া কমছে।’
গত বছরের এই ট্রান্সফরমার পুড়ে যাওয়ার তথ্য নিয়ে আইবিতে যোগাযোগ করা হলে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একজন কর্মকর্তা জানান, ‘যখন বিদ্যুৎ সংযোগ দেওয়া হয়, তখন একজন ব্যবহারকারী সম্পর্কে সঠিক তথ্যের মূল্যায়ন না করায় এমন বিপত্তি ঘটে।’
তিনি বলেন, ‘যখন নতুন কোনও এলাকায় বিদ্যুৎ-সংযোগ দেওয়া হয়, তখন একজন ব্যবহারকারীর ফ্যান, লাইট ও একটি টেলিভিশনের জন্য লোড বিবেচনা করা হয়।
তবে সংযোগ পাওয়ার পর ওই ব্যবহারকারী বৈদ্যুতিক যন্ত্রাংশ বাড়ালে সিস্টেমের ওপর চাপ পড়ে। এভাবে ট্রান্সফরমারটি ওভারলোডে চলতে থাকে।
ওভারলোডে চলতে চলতে একসময় সেটি পরিবর্তন না করলে পুড়ে যায়।’ দেশের অধিকাংশ ট্রান্সফরমার পুড়ে যাওয়ার প্রধান কারণই ওভারলোড সমস্যা বলে জানান তিনি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *