রাতে ঢাকা থেকে বাড়ি ফিরেই ঘুম, সকালে উঠে ৯ তলা থেকে লাফ !

image_pdfimage_print

ঢাকায় বোনের বাসায় থাকতেন জান্নাতুল হাসিন (২৪)। বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যান্ড টেকনোলজি (বিইউবিটি) থেকে স্নাতক শেষে বর্তমানে ঢাকার মিরপুরে একটি বেসরকারি ব্যাংকে ইন্টার্নি করছিলেন। সোমবার রাতে কাউকে না জানিয়ে কুমিল্লায় বাড়িতে চলে আসেন। এরপর চুপচাপ নিজের রুমে গিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত বাসায় ছিলেন। দুপুর দেড়টার দিকে হঠাৎ বাসার সদস্যদের জানালেন বাইরে যাচ্ছেন দোকান থেকে শ্যাম্পু কিনতে। কিন্তু একটু পরেই জানা গেলো পার্শ্ববর্তী নির্মাণাধীন ভবনের ৯তলা থেকে লাফিয়ে আত্মহত্যা করেছেন হাসিন।
মঙ্গলবার দুপুর দেড়টার দিকে কুমিল্লা নগরীর ঝাউতলায় সিটি কর্পোরেশন কার্যালয়ের পিছনে ১০নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলরে অফিসের পাশে এ ঘটনা ঘটে। হাসিন ওই এলাকার ইদ্রিস মেহেদীর কন্যা।
জানা গেছে, বাবা ইদ্রিস মেহেদী পরিবার নিয়ে নগরীর ঝাউতোলায় থাকেন। তার তিন মেয়ে এবং এক ছেলে। নিহত জান্নাতুল হাসিন মেজো মেয়ে। তিনি ঢাকায় গার্মেন্ট ব্যবসা করেন।
ইদ্রিস মেহেদী জানান, জান্নাতুল হাসিন বড় মেয়ে জান্নতুল হেছানের বাসায় থেকে বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব বিজনেস অ্যান্ড টেকনোলজি (বিইউবিটি) থেকে স্নাতক শেষ করেছে। ওই বাসায় বড় মেয়ে এবং তার স্বামী সঙ্গে মেজো মেয়ে হাসিন থাকতেন। তবে বড় মেয়ে এবং তার স্বামী দুইজনই চাকরিজীবী। নিহত হাসিন মিরপুর-৬ এর বেসরকারি ব্যাংকের একটি শাখায় ইন্টার্নি করতেন।
আত্মহত্যা করলো কেন ধারণা কি? জানাতে চাইলে বাবা ইদ্রিস জানায়, ঢাকা থেকে রাতে কুমিল্লা আসে। কারো সাথে তেমন কথা বলেনি, খাওয়া দাওয়াও করেনি। কোনো ছেলের সাথে সম্পর্ক ছিল কি না? তিনি সেটা জানেন না। অন্য কারো সাথে কোনো দ্বন্দ্ব ছিল কি না সেটাও বলতে পারেননি তিনি।
স্থানীয় ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মনজুর কাদের মনি জানান, আমরা অফিসের ভিতরে বসে কাজ করছি। দুপুর দেড়টার দিকে হঠাৎ একটি বড় শব্দ হয়। বের হয়ে দেখি একটি মেয়ে মাটিতে পড়ে আছে। কয়েকজন দৌঁড়ে এসে তার মাথায় পানি দেওয়ার চেষ্টা করে। এরমধ্যেই হাত-পা ছেড়ে দিয়ে মেয়েটি মারা যায়।
কুমিল্লা কোতয়ালী মডেল থানার ওসি আনোয়ারুল হক বলেন, যেহেতু মেয়েটি একটি নির্মাণাধীন বহুতল ভবনের ছাদ থেকে লাফিয়ে পড়ে মারা গেছে। সে হিসেবে আমরা প্রাথমিকভাবে বলবো- আত্মহত্যা করেছে। ময়নাতদন্ত হবে এবং মৃত্যুর পিছনের ঘটনা জানতে পারলে তার কারণ বলা যাবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *