ভাস্কর্য অবমাননার মূল পরিকল্পনাকারী ও কুশীলব বিএনপি: ওবায়দুল কাদের

image_pdfimage_print

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরও বলেন, দেশে যখন মুক্তিযুদ্ধের চেতনাকে চ্যালেঞ্জ করা হয় তখনও বিএনপি প্রকাশ্যে একটি বাক্য বলারও সাহস দেখাতে পারেনা। অথচ তারা বলে দলে নাকি মুক্তিযোদ্ধার সংখ্যা বেশি। শেখ হাসিনা সরকার সমালোচনার ভয় পায় না। গঠনমূলক সমালোচনাকে স্বাগত জানায় কিন্তু বিএনপির অপরাজনীতির জন্যই জনগণ প্রত্যাখ্যান করেছে।
তিনি বলেন, নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করে বিএনপি প্রকারান্তরে নিজেরাই নিজেদের পায়ে কুড়াল মারছে। জয়ী হওয়ার জন্য নয়, বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেয় প্রশ্নবিদ্ধ করতে। প্রকৃতপক্ষে গণতন্ত্রের অব্যাহত এগিয়ে যাওয়ার পথ আরও মজবুত করতে সরকার শক্তিশালী এবং দায়িত্বশীল বিরোধী দল চায়।
দেশে এখন কোনো দুর্দিন নেই। ভয়াবহ দুর্দিন চলছে বিএনপির রাজনীতিতে। বিএনপির রাজনৈতিক মনস্তত্ব এখন দুর্দশাগ্রস্ত। দেশের মানুষ ও অর্থনীতি করোনার নেতিবাচক প্রভাব মোকাবেলা করে ঘুরে দাঁড়াতে শুরু করেছে। অর্জন করেছে ঈর্ষনীয় প্রবৃদ্ধি। হাতের তালু দিয়ে আকাশ ঢাকার অপচেষ্টা না করে বাস্তবতা মেনে ও দেশের মানুষের প্রতি শ্রদ্ধাশীল হতে বিএনপি নেতাদের পরামর্শ দেন তিনি।
তিনি আরও বলেন, দেশে কোনো একদলীয় শাসনব্যবস্থা নেই। রয়েছে গণতন্ত্রের অভিযাত্রা। আছে কার্যকর সংসদ। অথচ বিএনপি মহাসচিব তথাকথিত একদলীয় শাসনের অবসান ঘটাতে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানিয়ে মূলত উন্নয়ন ও স্বাধীনতা বিরোধী শক্তিকেই ঐক্যবদ্ধ থাকার কথা বলেছেন। বিএনপি এখন মুক্তিযুদ্ধ- বিরোধী শক্তির সঙ্গে গোপন সখ্যতা গড়ে তুলে দেশকে অস্থিতিশীল করার অপচেষ্টা করছে।
ওবায়দুল কাদের বলেন, স্থানীয় সরকার নির্বাচনে দলের কোন বিদ্রোহী প্রার্থীকে মনোনয়ন দেওয়া হবে না। বদ্রোহীদের মনোনয়ন দিলে তারা প্রশ্রয় পেয়ে যাবে। দলে বিশৃঙ্খলা দেখা দিতে পারে। এবিষয়ে আওয়ামী লীগ অনেক কঠোর। দল করতে হলে শৃঙ্খলা মেনে চলতে হবে।
সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, মুজিববর্ষের মধ্যেই সারাদেশের পাড়ায় মহল্লায় শতভাগ বিদ্যুৎ পৌঁছে যাবে। গোটা বাংলাদেশ বিদ্যুৎতের আলোয় আলোকিত হবে।
শনিবার নওগাঁ জেলার মান্দা উপজেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলনে তাঁর বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সে তিনি এসব কথা বলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *