ভারতের লজ্জার সর্বনিম্ন রানের নতুন রেকর্ড

image_pdfimage_print

টেস্ট ক্রিকেটে কম রানের রেকর্ডে ভারত দশম থেকে এবার সপ্তম স্থানে উঠে এসেছে। ১৯৭৪ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১৭ ওভারে অলআউট হয়েছিল সুনীল গাভাস্কার – অজিত ওয়েদাকরা। এবার সেই রেকর্ড ভাঙল বিরাট কোহলি নেতৃত্বাধীন ভারত। সবচেয়ে কম রানের ইনিংসগুলোতে সপ্তম স্থানে উঠে এসেছে তারা। লজ্জার রেকর্ডের দিনে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৯ উইকেটে ৩৬ রান সংগ্রহ করতে পেরেছে টিম ইন্ডিয়া।
শনিবার অ্যাডিলেডে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে শেষ ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ শামি হাতে চোট পাওয়ায় মাঠ ছাড়তে বাধ্য হন। এরপরই সর্বনিম্ন দলীয় রানের নতুন রেকর্ড গড়ে ভারতীয়রা।
তের একজন ব্যাটসম্যানও ছুঁতে পারেনি দুই অংক। ৪০ বল খেলে ৯ রান তুলে দলীয় সর্বোচ্চ রানের ইনিংসটি খেলেন মায়াঙ্ক আগারওয়াল। চেতেশ্বর পূজারা, আজিঙ্কা রাহানে ও রবিচন্দ্রন অশ্বিন আউট হন রানের খাতা না খুলেই। ৮ বলে ৪ রান তুলেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি। অন্যদিকে মাত্র পাঁচ ওভার বল করে ৮ রান দিয়ে পাঁচ উইকেট তুলেন জস হ্যাজেলউড। ১০.২ ওভারে ২১ রান খরচ করে চারটি উইকেট নেন প্যাট কামিন্স।
১৯৫৫ সালে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ২৭ ওভারে ২৬ রানে অলআউট হয়েছিল নিউজিল্যান্ড। যা টেস্টের ইতিহাসে সবচেয়ে কম দলীয় রানের রেকর্ড। সর্বনিম্ন দলীয় রানের দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ স্থান দক্ষিণ আফ্রিকার। তিনটি ইনিংসেই প্রতিপক্ষ ছিল ইংলিশরা। ১৮৯৬ সালে ১৮.৪ ওভারে ৩০ রান তুলেছিল প্রোটিয়ারা। ১৯২৪ সালে ১২.৩ ওভারে ৩০ রান করে দলটি। ১৮৯৯ সালে ২২.৪ ওভারে ৩৫ রানে গুটিয়ে যায় দক্ষিণ আফ্রিকা।
মজার বিষয় হচ্ছে পঞ্চম স্থানেও রয়েছে আফ্রিকা মহাদেশের দলটি। যদিও এবার তাদের প্রতিপক্ষ ভিন্ন। ১৯৩২ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ২৩.২ ওভারে ৩৬ রানে অলআউট হয় তারা। এক ইনিংসে সবচেয়ে কম রান তোলা দল হিসেবে ছয় নম্বরে রয়েছে অজিরা। ১৯০২ রানে ২৩ ওভার খেলে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এই রান সংগ্রহ করেছিল তারা।
এরপরই রয়েছে সপ্তম স্থানে থাকা ভারতের ১৯ ডিসেম্বর শনিবার করা লজ্জার রেকর্ডটি। অষ্টম স্থানে আছে আয়ারল্যান্ড। ২০১৯ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১৫.৪ ওভারে ৩৮ রানে ফিরে যায় দলের সব ব্যাটসম্যান। নবম ও দশম স্থানে রয়েছে যথাক্রমে অস্ট্রেলিয়া ও ভারত।ভারতের লজ্জার সর্বনিম্ন রানের নতুন রেকর্ড

টেস্ট ক্রিকেটে কম রানের রেকর্ডে ভারত দশম থেকে এবার সপ্তম স্থানে উঠে এসেছে। ১৯৭৪ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১৭ ওভারে অলআউট হয়েছিল সুনীল গাভাস্কার – অজিত ওয়েদাকরা। এবার সেই রেকর্ড ভাঙল বিরাট কোহলি নেতৃত্বাধীন ভারত। সবচেয়ে কম রানের ইনিংসগুলোতে সপ্তম স্থানে উঠে এসেছে তারা। লজ্জার রেকর্ডের দিনে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৯ উইকেটে ৩৬ রান সংগ্রহ করতে পেরেছে টিম ইন্ডিয়া।
শনিবার অ্যাডিলেডে নিজেদের দ্বিতীয় ইনিংসে শেষ ব্যাটসম্যান মোহাম্মদ শামি হাতে চোট পাওয়ায় মাঠ ছাড়তে বাধ্য হন। এরপরই সর্বনিম্ন দলীয় রানের নতুন রেকর্ড গড়ে ভারতীয়রা।
তের একজন ব্যাটসম্যানও ছুঁতে পারেনি দুই অংক। ৪০ বল খেলে ৯ রান তুলে দলীয় সর্বোচ্চ রানের ইনিংসটি খেলেন মায়াঙ্ক আগারওয়াল। চেতেশ্বর পূজারা, আজিঙ্কা রাহানে ও রবিচন্দ্রন অশ্বিন আউট হন রানের খাতা না খুলেই। ৮ বলে ৪ রান তুলেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি। অন্যদিকে মাত্র পাঁচ ওভার বল করে ৮ রান দিয়ে পাঁচ উইকেট তুলেন জস হ্যাজেলউড। ১০.২ ওভারে ২১ রান খরচ করে চারটি উইকেট নেন প্যাট কামিন্স।
১৯৫৫ সালে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ২৭ ওভারে ২৬ রানে অলআউট হয়েছিল নিউজিল্যান্ড। যা টেস্টের ইতিহাসে সবচেয়ে কম দলীয় রানের রেকর্ড। সর্বনিম্ন দলীয় রানের দ্বিতীয়, তৃতীয় ও চতুর্থ স্থান দক্ষিণ আফ্রিকার। তিনটি ইনিংসেই প্রতিপক্ষ ছিল ইংলিশরা। ১৮৯৬ সালে ১৮.৪ ওভারে ৩০ রান তুলেছিল প্রোটিয়ারা। ১৯২৪ সালে ১২.৩ ওভারে ৩০ রান করে দলটি। ১৮৯৯ সালে ২২.৪ ওভারে ৩৫ রানে গুটিয়ে যায় দক্ষিণ আফ্রিকা।
মজার বিষয় হচ্ছে পঞ্চম স্থানেও রয়েছে আফ্রিকা মহাদেশের দলটি। যদিও এবার তাদের প্রতিপক্ষ ভিন্ন। ১৯৩২ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ২৩.২ ওভারে ৩৬ রানে অলআউট হয় তারা। এক ইনিংসে সবচেয়ে কম রান তোলা দল হিসেবে ছয় নম্বরে রয়েছে অজিরা। ১৯০২ রানে ২৩ ওভার খেলে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে এই রান সংগ্রহ করেছিল তারা।
এরপরই রয়েছে সপ্তম স্থানে থাকা ভারতের ১৯ ডিসেম্বর শনিবার করা লজ্জার রেকর্ডটি। অষ্টম স্থানে আছে আয়ারল্যান্ড। ২০১৯ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ১৫.৪ ওভারে ৩৮ রানে ফিরে যায় দলের সব ব্যাটসম্যান। নবম ও দশম স্থানে রয়েছে যথাক্রমে অস্ট্রেলিয়া ও ভারত।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *