বর্ডার ছবির কাজ শেষ করলেন সর্বাধিক ছবির পরিচালক সৈকত নাসির

image_pdfimage_print

সোমবার গভীর রাত থেকে ভোর পর্যন্ত একটি আইটেম গানের চিত্রগ্রহণের মধ্য দিয়ে পরিচালক সৈকত নাসিরের বর্ডার ছবির কাজ শেষ হয়েছে। এই আইটেম গানে অংশ নিয়েছেন প্রজাপতি ছবি খ্যাত অভিনেত্রী লাবণ্য।
বর্তমান সময়ে যে ক’জন নির্মাতা চলচ্চিত্র নির্মাণের মধ্য দিয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন তাদের মধ্যে সৈকত নাসির অন্যতম। তার নির্মিত আকবর ছবিটি বর্তমানে মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে। বর্ডার চিত্রগ্রহণের কাজ শেষ হলেও অন্যান্য কাজ রয়ে গেছে।
এছাড়াও তিনি নির্মাণ করছেন ক্যাসিনো, মাসুদ রানা, জার্নি উইথ ইউ এবং গুলশানের চামেলী। এর মধ্যে ক্যাসিনো ছবির কাজও শেষ হয়ে গেছে। তার ইউনিটের একজন জানালেন, সৈকত নাসিরের হাতে ১০টির মতো ছবি রয়েছে।
তারপরেই ব্যস্ততম পরিচালক হিসেবে উল্লেখ করা যায় শামীম আহমেদ রনির নাম। তিনি শাপলা মিডিয়ারই যৌথ প্রযোজনাসহ বেশ কয়েকটি ছবি নির্মাণ করছেন। কলকাতার দেবকে নিয়ে তিনি কমান্ডো নামে একটি ছবি নির্মাণ করছেন।
এছাড়া তিনি শাপলা মিডিয়া থেকে নির্মাণ করছেন টুঙ্গিপাড়ার মিয়া ভাই ও একাত্তরের ইতিহাস। লক্ষ্য করার বিষয় হলো টুঙ্গিপাড়ার মিয়া ভাই ছবিটি পরিচালক সমিতিতে নিবন্ধিত হয়েছে শাপলা মিডিয়ার কর্ণধার সেলিম খানের নামে।
সৈকত নাসির ও শামীম আহমেদ রনির পরেই আর যারা ব্যস্ত নির্মাতা তারা হলেন রায়হান রাফি এবং নঈম ইমতিয়াজ নিয়ামুল। এসব নির্মাতাদের বলতে গেলে সকলেই এসেছেন মিডিয়া থেকে। অর্থাৎ নাটক, ধারাবাহিক এবং ওয়েব সিরিজ নির্মাণের অভিজ্ঞতা নিয়েই চলচ্চিত্র নির্মাণের কাজ শুরু করেছেন।

এই ঘরানার দু’জন পরিচালক অমিতাভ রেজা চৌধুরী ও গিয়াসউদ্দিন সেলিমের যথাক্রমে আয়নাবাজি ও মনপুরা ব্যবসায়িকভাবে ব্যাপক সফল হওয়ার পর মিডিয়ার নির্মাতাদের ওপর বিনিয়োগকারীদের আস্থা স্থাপন হয়।
কিন্তু সৈকত নাসিরের দেশা দি লিডার ছবি কেমন এবং কত টাকা ব্যবসা করেছে সেটা কারো অজানা নয়। তবে ভিএফএক্সের কাজটা ভালো জানেন সৈকত নাসির। সেটা তার কাজ থেকেই বুঝা যায়। কিন্তু শুধু ভিএফএক্সের কাজ দক্ষভাবে করতে পারাটা একটি সুনির্মিত ছবির জন্য যথেষ্ট নয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *