বন্ধ হয়ে যেতে পারে বড় চলচ্চিত্র প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান শাপলা মিডিয়া

image_pdfimage_print

প্রতিষ্ঠানটির কর্ণধার সেলিম খানের একটি ঘনিষ্ঠ সূত্র এই তথ্য জানিয়ে বলেছেন, প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানটি আগে ব্যবসায়িক কারণে ছবি নির্মাণ করলেও এখন বিনিয়োগ তার পুত্র শান্ত খানকে চলচ্চিত্রে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য। শান্ত খানের জুটি হিসেবে বয়সের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে বেছেও নেওয়া হয়েছে দোয়েল কন্যা দীঘিকে। কিন্তু সকলকে হতাশ করে দিয়ে শান্ত খান চলে যাচ্ছেন অস্ট্রেলিয়ায়। মহামারীর কারণে তার দেরি হচ্ছে।
এছাড়া শান্ত-দীঘির হাতে বেশ কয়েটি ছবি রয়েছে। সেগুলো শেষ করে শান্তর বিদেশ যাওয়ার সময় নিশ্চিত করা হবে। বর্তমানে এই প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানটির প্রায় নয়টি ছবি প্রস্তুত হয়ে আছে। ছবিগুলো মুক্তি পাচ্ছে না। চলচ্চিত্রশিল্পের বর্তমান বিনিয়োগ সংকটে শাপলা মিডিয়ার গুরুত্ব অনেক। ইতোমধ্যে এই প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানটি এগার জন পরিচালককে চলচ্চিত্র নির্মাণের জন্য চুক্তিবদ্ধ করেছে।
তাদের মধ্যে রয়েছেন শামীম আহমেদ রনি, দেলোয়ার জাহান ঝন্টু, কাজী হায়াত, শাহ আলম কিরণ, মালেক আফসারী, অপূর্ব রানা, এফআই মানিক, শাহীন সুমন এবং জাকির হোসেন রাজু। কিন্তু শান্ত খানের অনুপস্থিতিতে এ ছবিগুলোর ভাগ্যে কি ঘটবে কেউ জানে না। এছাড়া এই প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান থেকে কলকাতার অভিনেতা দেবের প্রযোজনা প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যৌথ প্রযোজনায় নয়টি ছবি নির্মাণ করার কথা ছিল। সেগুলোও বাতিল হয়ে গেছে বলে সূত্রটি জানিয়েছে।
একইসঙ্গে উল্লেখ করা যায়, সেলিম খানের সঙ্গে পরিচালক সমিতির একটা বিরোধ তৈরি হয়েছে। অনেক চেষ্টা করা সত্ত্বেও সেই বিরোধের নিষ্পত্তি হয়নি। এই পরিস্থিতিতে সেলিম খানের মনে ঘটনাটি নিয়ে একটা অস্বস্তি রয়েছে। তবে এই বিরোধকে কেন্দ্র করে চলচ্চিত্রশিল্পের পক্ষ থেকে প্রযোজক পরিবেশক সমিতির সদ্য বিলুপ্ত নির্বাহি কমিটির সভাপতি খোরশেদ আলম খসুরু সেলিম খানের কাছে দু:খও প্রকাশ করেছেন। কিন্তু তাতেও তেমন একটা কাজ হয়নি। সামনে পরিচালক সমিতির নির্বাচন। সেখানে কমিটি বদলের জন্য সেলিম খান কোনো ভূমিকা রাখলেও রাখতে পারেন। এমনটাই ভাবছেন পরিচালকদের একটা অংশ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *