ফ্রান্সে পাবলিক প্লেসে হিজাব নিষিদ্ধের প্রস্তাব প্রেসিডেন্ট প্রার্থী মেরি লা পেনের

image_pdfimage_print

লা পেন আরও বলেন, আমি মনে করি হেডস্কার্ফ একটি ইসলামি পোশাক। এটি পরিহিতাকে সনাক্ত করা কঠিন। তাই নিষিদ্ধ জরুরি। গত শনিবার তিনি সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন। তিনি এক প্রস্তাবে ইসলামি ভাবাদর্শের বিস্তারকে হুমকি মনে করেন বলে জানান । বার্তা সংস্থা এএফপি জানিয়েছে, লা পেনের এই প্রস্তাবকে তাৎক্ষণিকভাবে চ্যালেঞ্জ জানাবে বিভিন্ন মানবাধিকার সংগঠন এবং অধিকার কর্মী। আর এটা নিশ্চিতভাবেই অসংবিধানিক হিসেবে বাতিল হয়ে যাবে।
তবে এ ধরনের জেনোফোবিক, অ্যান্টি-ইইউ এবং অভিবাসী বিরোধী সুর চড়িয়ে নির্বাচনী বৈতরনী পার হতে চাইছেন লা পেন। এখন পর্যন্ত নিজের সেই প্রচেষ্টায় অনেকটাই সফলও হয়েছেন লা পেন। হ্যারিস ইন্টারঅ্যাক্টিভ পরিচালিত এক অনলাইন জরিপে দেখা গেছে, ৪৮ শতাংশ ভোটার তাকে সমর্থন করে।
আগামী বছর সালে ফ্রান্সে প্রেসিডেন্ট নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে। কিন্তু তার আগেই পরিবেশ গরম করতে মাঠে নেমে পড়েছেন সম্ভাব্য প্রেসিডেন্ট প্রার্থীরা। তাদেরই একজন হচ্ছেন মেরি লা পেন।
ফ্রান্সের রাজনীতিতে সুপরিচিত মুখ এই লা পেন। বিগত নির্বাচনে প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রোঁর সঙ্গে নির্বাচনে ব্যাপক লড়েছিলেন তিনি। এর আগে ২০১৭ সালের ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে মুসলিম বিরোধী ভাষা প্রয়োগ করে ক্ষমতায় যাওয়ার চেষ্টা করেছিলেন লা পেন। কিন্তু তখন রাজনীতিতে নতুন মুখ ম্যাক্রোঁর কাছে হেরে বসেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *