প্রকল্পের বিরুদ্ধে মামলা হলে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

image_pdfimage_print

নিজস্ব প্রতিবেদক
স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রণালয়ের ‘ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) এলাকার ট্রাফিক অবকাঠামো উন্নয়নসহ সড়ক নিরাপত্তা’ নামের একটি প্রকল্প অনুমোদন দিয়েছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। এতে খরচ হবে ৩১৯ কোটি ২৩ লাখ টাকা। চলতি মাস থেকে ২০২৩ সালের জুন পর্যন্ত সময়ের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে।

মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) একনেক সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসব নির্দেশনা দেন বলে সভা শেষে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন পরিকল্পনা সচিব আসাদুল ইসলাম।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এই নির্দেশনা দিয়েছেন, যেকোনও প্রকল্পের বিরুদ্ধে মামলা হলে সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে। তিনি বলেন, ‘মামলার কারণে অনেক প্রকল্প বাস্তবায়নে দেরি হয়ে যায়। মামলা যখনই হবে, উদ্যোগী মন্ত্রণালয় যেন সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা গ্রহণ করে, যাতে প্রকল্প বাস্তবায়ন কোনোভাবে ব্যাহত না হয়।’

প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা তুলে ধরে পরিকল্পনা সচিব জানান, সিটি করপোরেশনগুলো বা স্থানীয় সরকারের যে প্রতিষ্ঠানগুলো আছে, সেগুলোর সক্ষমতা বাড়াতে হবে। এজন্য ধীরে ধীরে কীভাবে, কোন প্রতিষ্ঠান কী করবে, কীভাবে অর্গানাইজেশন থাকবে—এটা পুরোটা রিভিজিট করতে হবে। যদিও ‘ঢাকা সিটি করপোরেশনের পুরো টাকাই সরকারের তহবিল থেকে দেওয়ার নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।

সচিব আরও জানান, একনেক সভায় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘প্রয়োজনে পর্যাপ্ত পরিমাণ ব্রিজ, কালভার্ট ও পানি চলাচলের ব্যবস্থা করতে হবে। কোনও ক্ষেত্রে প্রয়োজন হলে রাস্তা এদিক-ওদিক করতে হবে। বিশেষ করে বিল, হাওর-বাঁওড় বাঁচিয়ে রাখতে হবে। কারণ, এগুলো আমাদের লাইফ লাইন। এগুলো ভূগর্ভস্থ পানির স্তর রক্ষা করে, বিভিন্নভাবে পানি সরবরাহ করে।’ প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষা করতে তিনি এই নির্দেশনা দিয়েছেন।

তিনি বলেছেন, ‘প্রয়োজনে পর্যাপ্ত পরিমাণ ব্রিজ, কালভার্ট ও পানি চলাচলের ব্যবস্থা করতে হবে। কোনো ক্ষেত্রে প্রয়োজন হলে রাস্তা এদিক-ওদিক করতে হবে। বিশেষ করে বিল, হাওড়-বাওড় বাঁচিয়ে রাখতে হবে। কারণ এগুলো আমাদের লাইফ লাইন, এগুলো ভূগর্ভস্থ পানির স্তর রক্ষা করে, বিভিন্নভাবে পানি সরবরাহ করে। প্রাকৃতিক ভারসাম্য রক্ষা করতে তিনি এই নির্দেশনা দিয়েছেন।’

‘মামলার কারণে প্রকল্প দেরি হয়ে যায়। মামলা যখনই হবে, তখনই যেন উদ্যোগী মন্ত্রণালয় সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা গ্রহণ করে, যাতে প্রকল্প বাস্তবায়ন কোনোভাবে ব্যাহত না হয়’, প্রধানমন্ত্রী এই নির্দেশনাও দিয়েছেন বলে জানান সচিব।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *